অদম্য মেধাবীদের জন্য উন্মুক্ত পৃথিবী

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: ০১:২৩, নভেম্বর ০৩, ২০১৬ | প্রিন্ট সংস্করণ

ব্র্যাক ব্যাংক, প্রথম আলো ট্রাস্ট-অদম্য মেধাবী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংবর্ধনা পাওয়া কৃতী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অতিথিরা। গতকাল রাজধানীর কারওয়ান বাজারের সিএ ভবনের মিলনায়তনে তাঁদের সংবর্ধনা দেওয়া হয় l ছবি: প্রথম আলো ​নীলফামারীর মাসুদ রানা। অন্যের জমিতে ঘর তুলে বসবাস করেন। মা কাজ করেন অন্যের বাড়িতে। তবে দাদা স্বপ্ন দেখতেন, নাতি চিকিৎসক হবে। মাসুদ রানা সে স্বপ্ন পূরণ করতে চলেছেন। তিনি এখন রাজশাহী মেডিকেল কলেজে ফাইনাল ইয়ারে পড়ছেন।
মাসুদ রানার স্বপ্নপূরণে এগিয়ে এসেছে ব্র্যাক ব্যাংক ও প্রথম আলো ট্রাস্ট। এইচএসসি থেকে এ পর্যন্ত তিনি পেয়েছেন শিক্ষাবৃত্তি।
গতকাল বুধবার ব্র্যাক ব্যাংক, প্রথম আলো ট্রাস্ট-অদম্য মেধাবী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসে মাসুদ রানা শোনালেন তাঁর জীবনের গল্প। ২০১৪ সালে এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পাওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে ৫০ জনকে শিক্ষাবৃত্তির জন্য নির্বাচন করা হয়েছিল। চলতি বছরে এইচএসসি পরীক্ষাতেও কৃতিত্ব অক্ষুণ্ন রাখায় তাঁদের মধ্যে ২৩ জনকে মেডেল ও উচ্চশিক্ষায় বৃত্তি দেওয়া হয়। স্নাতক সম্পন্ন করা ১২ জন অদম্য মেধাবীকে ক্রেস্ট দেওয়া হয়। এ ছাড়া চলতি বছর আবার এসএসসিতে জিপিএ ৫ পাওয়া ৫০ জনসহ মোট ৮৫ জনকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। তাঁদের মধ্যে কেউ কেউ নানা কারণে উপস্থিত হতে পারেননি।
কারওয়ান বাজারের সিএ ভবনের মিলনায়তনে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অদম্য মেধাবী শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের মুখের হাসিতে পরিবেশটি ঝলমল করতে থাকে। সমাজের আলোকিত ব্যক্তিদের হাত থেকে সম্মাননা নেওয়া ও বক্তব্য শোনা এবং তাঁদের সঙ্গে ছবি তোলারও সুযোগ ছিল। অনুষ্ঠানে তিন ভাই-বোন স্বাগতা, সভ্যতা ও সন্ধি এবং ভিকারুননিসা নূন স্কুলের দশম শ্রেণির ১৬ জন শিক্ষার্থীর একটি দল গান পরিবেশন করে। ব্র্যাকের কার্যক্রম এবং কলসিন্দুরের তাসলিমা, মারিয়া, সানজিদাদের ফুটবল খেলায় এগিয়ে চলা নিয়ে একটি ভিডিও দেখানো হয়।
অনুষ্ঠানে ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের উপাচার্য জামিলুর রেজা চৌধুরী বলেন, জন্মের পর সব শিশুর মেধা থাকে। কিন্তু এই মেধার বিকাশে নিজের চেষ্টা, অভিভাবকদের উৎসাহ ও সহায়তা প্রয়োজন। সফল ব্যক্তিদের গল্প শুনিয়ে তিনি বলেন, মেধাবীদের চেষ্টা ও ভালো ফল থাকলে উচ্চশিক্ষার দ্বার খোলা আছে।
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক অদম্য মেধাবীদের বলেন, ‘তোমাদের জন্য পৃথিবী উন্মুক্ত। “আমি কি পারব” থেকে “আমি পারব”, এ জায়গায় নিয়ে যেতে হবে। তোমাদের একেকজন পৃথিবী বদলে দিতে পারবে। সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার প্রতিজ্ঞা করতে হবে। ভয় নেই, তোমরা এগিয়ে চলো।’
সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটির উপাচার্য পারভিন হাসান শিক্ষাবৃত্তির আওতায় অদম্য মেধাবী লিপি খাতুনের গল্প শোনালেন। এই লিপি সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটি থেকে বিবিএ করে একটি প্রতিষ্ঠানে এখন ইন্টার্নশিপ করছেন।
প্রথম আলো ট্রাস্টের ভাইস চেয়ারম্যান ও বার্জার পেইন্ট বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রুপালি চৌধুরী ব্র্যাক ব্যাংক ও প্রথম আলো ট্রাস্টের অদম্য মেধাবীদের এগিয়ে নেওয়ার যে প্রচেষ্টা, তা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল বলে উল্লেখ করেন। তিনি অন্যান্য সংগঠনকেও এ কাজে এগিয়ে আসার জন্য আহ্বান জানান।
ব্র্যাক ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মামদুদুর রশীদ বলেন, ‘তোমাদের ওপরে ওঠার জন্য পাহাড় কেটে কিছুটা মসৃণ করে দেওয়ার কাজটি করছে প্রথম আলো ট্রাস্ট ও ব্র্যাক ব্যাংক। এটি অনুগ্রহ বা অনুকম্পা নয়, এটি তোমাদের প্রাপ্য। এ কাজ করে প্রতিষ্ঠান দুটি নিজেরাই সম্মানিত হচ্ছে।’
প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হক অদম্য মেধাবীদের কয়েকজনকে মঞ্চে ডাকেন, তাঁদের জীবনের গল্প বলতে বলেন। কয়েকজন গানও গেয়ে শোনান।
প্রথম আলো ট্রাস্টের প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা আজিজা আহমেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে মনোরোগ চিকিৎসক মোহিত কামাল, ব্র্যাক ব্যাংকের হেড অব কমিউনিকেশন জারা জাবিন মাহমুদ, প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান, সহযোগী সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
প্রথম আলো ট্রাস্ট ২০০৭ সাল থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে অদম্য মেধাবীদের শিক্ষাবৃত্তি দেওয়া শুরু করে। ২০১০ সাল থেকে অদম্য মেধাবীদের শিক্ষাবৃত্তি দেওয়ার আর্থিক দায়িত্ব নিয়ে এতে যুক্ত হয় ব্র্যাক ব্যাংক। এ পর্যন্ত ৬৫৬ জন সহায়তা পেয়েছেন, আর বর্তমানে শিক্ষাবৃত্তির আওতায় আছেন ৩০৯ জন শিক্ষার্থী।