অদম্য মেধাবী

প্রথম আলো ট্রাস্ট মাধ্যমিক পরিক্ষায় জিপিএ ৫ প্রাপ্ত ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে যারা দরিদ্র, অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল এবং যাদের শিক্ষার জন্য নিজেরা পরিশ্রম করে এরকম দেশ ব্যাপী কিছু ছাত্রছাত্রীর মধ্যে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। বিশাল বাংলার সাংবাদিকদল খবরের জন্য দেশব্যাপী ঘুড়ে বেড়ান এবং সংবাদ সংগ্রহ করেন। ফলে এই সুবাদে দেশের আনচে-কানাচে ছড়িয়ে থাকা মেধাবী অথচ দরিদ্র শিক্ষার্থীদের সংস্পর্শে আসেন। সামান্য অর্থের অভাবে যাদের উজ্জল ভবিষ্যত থাকা স্বত্বেও শিক্ষা জীবন গুরুতর ঝুঁকির মুখে তাদেরকে সহযোগিতা করার আশ্বাস দিচ্ছে প্রথম আলো।

বিশাল বাংলার সাংবাদিকগণ প্রথমে জিপিএ ৫ প্রাপ্ত দরিদ্র ছাত্র/ছাত্রীদের মধ্যে যারা প্রচণ্ড সমস্যার মাঝেও কষ্ট করে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছে তাদের একটি তালিকা তৈরি করেন। সেই তালিকা প্রথম আলোর কর্মকর্তাগণ বাছাই করে অঞ্চল, নারী-পুরুষ এই প্রভৃতি বিষয়ের উপর একটি সামঞ্জস্যতা ও ভারসাম্য বজায় রেখে চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করে। এরপর শুধুমাত্র উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে ২ বছরের জন্য নির্বাচিত ছাত্র/ছাত্রীকে ২০০০ টাকা মাসিক ভিত্তিতে প্রদান করা হয়। এছাড়া ৫০০০ টাকা দেয়া হয় ভর্তিকালীন সময়ে। এই ছাত্র/ছাত্রীদের মধ্যে অবশ্য দুই/এক জন আরও উচ্চতর পর্যায়ে যথা চিকিত্সা ও প্রকৌশল শাখায় লেখাপড়া করছে। তবে উচ্চতর পর্যায়ে সহযোগিতার হার খুব বেশী নয়।এই তহবিলের মাধ্যমে ইতিমধ্যে ৪৮৪ জন শিার্থীকে বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। বর্তমানে ২৪৩ জন শিার্থী নিয়মিতভাবে বৃত্তি পাচ্ছে। এর মধ্যে স্নাতক পর্যায়ে ১০২ জন, ডিপ্লোমা ৪ জন, এইচএসসিতে ৯৯ জন, কারিগরি ৫ জন, বিশেষ বিবেচনা ৩ জন এবং এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেন ৩০ জন।

|এই প্রকল্প দরিদ্র ছাত্রীদের একটু বেশী সুবিধা প্রদান করে থাকে যেন এই মেধাবী দরিদ্রছাত্রীরা নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে তুলতে পারে। প্রথম আলো তহবিল থেকে যারা সাহায্য পায়, তাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও আশেপাশের সকলেই তাদের প্রতি অনেক সহানুভূতিশীল হয় এবং সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসে।