প্রথম আলো সহায়ক তহবিলের কার্যক্রম

অ্যাসিড-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রথম আলো প্রতিবেদন, ফিচার, সম্পাদকীয়—সব স্থানে ‘আর একটি মুখও যেন ঝলসে না যায়’ অঙ্গীকারে উদ্বুদ্ধ হয়ে সংবাদপত্রের পাতায় বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে থাকে। যেখানে অ্যাসিড-সন্ত্রাস, সেখানেই প্রতিরোধ। এসিড-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সচেতনতা সৃস্টি ও জনমত গড়ে তোলার উদ্দেশ্য নিয়ে গঠিত অ্যাসিডদগ্ধ নারীদের জন্য সহায়ক তহবিল প্রথম আলো ট্রাস্টের অধীনে কাজ করে যাচ্ছে। যদিও প্রথম আলোর সাংবাদিকদের এক দিনের বেতন দিয়ে এই তহবিলের যাত্রা শুরু ২০০০ সালের ১৯ এপ্রিল; কিন্তু মূলত এ তহবিলটি চলছে প্রথম আলোর অনেক পাঠক ও শুভানুধ্যায়ীর আর্থিক সহযোগিতায়। এই পাঠকদের মধ্যে যেমন আছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী, করপোরেট জগতের নামকরা প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা, আবার আছে স্কুলপড়ুয়া ছোট্ট ছেলেমেয়ে কিংবা গার্মেন্টসকর্মী।
বিশ্বাস ও আস্থার জায়গা থেকে পাঠকেরা প্রথম আলোকে এই তহবিলে যে অর্থ দান করেন, তা দিয়ে প্রথম আলো সহায়ক তহবিল এসিড-সন্ত্রাসের শিকার নারীদের পুনর্বাসন, চিকিত্সা ও আইনি সহায়তা দিয়ে চলেছে।  তাঁদের জমি, ঘর, দোকান, গবাদিপশু, ট্রলার দেওয়ার মাধ্যমে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করা হয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন প্রশিক্ষণ, মাসিক ভাতা, শিক্ষা বৃত্তি, আইনি সহায়তা ও চিকিত্সা-সহায়তা পেয়েছেন আরও ১০০ জন নারী। সব মিলিয়ে ৩০০ জন নারী প্রথম আলো সহায়ক তহবিলের সহায়তা পেয়েছেন।
ভবিষ্যতে অ্যাসিড-সন্ত্রাস যাতে বন্ধ হয়, সে লক্ষ্যেই প্রথম আলো সহায়ক তহবিল সচেতনতা সৃষ্টির কাজে গুরুত্ব দিচ্ছে সবচেয়ে বেশি। সভা, সমাবেশ, মতবিনিময়, বিশেষ করে ঢাকার বাইরে যেসব এলাকায় এসিড-সন্ত্রাসের আধিক্য রয়েছে, সেখানে জনমত সৃষ্টিতে কাজ চলছে জোরেশোরে। সম্প্রতি ভোলা, সিরাজগঞ্জ, নরসিংদীতে এ ধরনের বড় মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।
প্রথম আলো এখন প্রতিদিন ইন্টারনেটের মাধ্যমে ছড়িয়ে গেছে সারা বিশ্বের প্রবাসী পাঠকদের কাছে। এই তহবিলে তাঁদের আর্থিক অংশগ্রহণ এবং সচেতনতা সৃষ্টির উদ্যোগ প্রশংসাযোগ্য।
প্রথম আলোর সারা দেশের স্থানীয় প্রতিনিধিদের মাধ্যমে খোঁজখবরের ভিত্তিতে এবং অ্যাসিড-সন্ত্রাস প্রতিরোধে অন্য যাঁরা কাজ করেন, তাঁদের সঙ্গে সমন্বয় করে এসিডদগ্ধ নারীদের আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে।

এসিডদগ্ধ নারীদের জন্য প্রথম আলো সহায়ক তহবিল
উপদেষ্টা কমিটি

1. মুহাম্মদ আজিজ খান, চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক, সামিট গ্রুপ
2. জওশন এ রহমান, সাবেক প্রধান, পরিকল্পনা বিভাগ (কর্মসুচি), ইউনিসেফ
3. ডা.সামন্তলাল সেন, বিভাগীয় প্রধান, বার্ন ইউনিট, ঢাকা মেডিকেল কলেজ
4. তাজিন আহমেদ, অধ্যক্ষ, সানিডেইল স্কুল
5. ইলিয়াস কাঞ্চন, অভিনেতা
6. তানিয়া আমির, আইনজীবী
7. প্রতিনিধি,ইনার হুইল ক্লাব জেলা ৩২৮
8. কুমার বিশ্বজিত্, কণ্ঠশিল্পী
9. কানিজ আলমাস খান,রূপবিশেষজ্ঞ
10. আসিফ আকবর, কণ্ঠশিল্পী
11. রূপালি চৌধুরী, সফল পেশাজীবী
12. মতিউর রহমান, সম্পাদক, প্রথম আলো