মাদকাসক্ত ব্যক্তির পাশে থাকুন

নিজস্ব প্রতিবেদক | আপডেট: ০২:১১, জানুয়ারি ০৮, ২০১৭ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রথম আলো ট্রাস্ট আয়োজিত মাদকবিরোধী পরামর্শ সভায় (বাঁ–থেকে) মো. জিল্লুর রহমান খান, ফারজানা রহমান, মেখলা সরকার, সিফাত-ই-সাইদ ও মো. জুবায়ের মিয়া l ছবি: প্রথম আলোকক্ষটিতে ঢুকেই দেখা গেল, এক পাশে চারটি ছোট টেবিল; এর উভয় পাশে চেয়ার। চারটা বাজতেই নির্ধারিত চেয়ারে গিয়ে বসলেন মনোচিকিৎসক আর একজন করে মাদকাসক্ত ব্যক্তি, একা বা অভিভাবকসহ। সমস্যার ধরন অনুযায়ী পরামর্শ নিচ্ছেন চিকিৎসক।

প্রথম আলো মাদকবিরোধী আন্দোলনের নিয়মিত কার্যক্রমের অংশ হিসেবে আয়োজিত মাদকবিরোধী পরামর্শ সহায়তা-৭৮-এর চিত্র এটি। গতকাল শনিবার রাজধানীর ডব্লিউভিএ মিলনায়তনে এ আয়োজন করে প্রথম আলো ও প্রথম আলো ট্রাস্ট। মাদকাসক্ত ব্যক্তি ও তার পরিবারের পরিচয় গোপন রেখে মনোরোগ বিশেষজ্ঞদের দ্বারা এই পরামর্শ সহায়তা দেওয়া হয়।

২২ বছর বয়সী এক তরুণ মাদক ছেড়ে দিয়ে আবার নিতে শুরু করেছেন। তাই পরামর্শ নিতে এসেছেন তিনি। চট্টগ্রাম থেকে এক বাবা জানতে এসেছেন মাদকাসক্ত ছেলেকে চিকিৎসকের কাছে আনার কৌশল। আরেক মা ছেলেকে এনেছেন নিয়মিত পরামর্শ সহায়তার অংশ হিসেবে।

বিকাল চারটা থেকে পাঁচটা পর্যন্ত এ ব্যক্তিগত পরামর্শ সহায়তা দেওয়া হয়। এরপর শুরু হয় আলোচনা অনুষ্ঠান। সভায় বিশেষজ্ঞরা বলেন, মাদকাসক্তি সম্পূর্ণ নিরাময়যোগ্য। কিন্তু এ জন্য তিনটি বিষয় দরকার। এক. আসক্তির বিষয়টি গোপন করা যাবে না। সন্তান বা পরিবারের সদস্যের আচরণ সন্দেহজনক হলে দ্রুত মনোরোগ চিকিৎসকের কাছে নিয়ে আসতে হবে ও পূর্ণ চিকিৎসা করাতে হবে। দুই. মাদকাসক্ত ব্যক্তিকে ঘৃণা না করে পাশে থাকতে হবে। তিন. পরিবারকে ধৈর্য ধরতে হবে। কারণ, আসক্ত ব্যক্তি অনাকাঙ্ক্ষিত আচরণ করতে পারে। মাদকাসক্ত ব্যক্তিরও মাদক ছাড়ার ইচ্ছা থাকতে হবে।

+৮৮০১৭১৬২৪২২১৫ নম্বরে যোগাযোগ করে বা অনুষ্ঠানে সরাসরি হাজির হয়েও বিনা মূল্যে এ সেবা নেওয়া যায়। প্রথম আলো ট্রাস্টের কর্মসূচি ব্যবস্থাপক ফেরদৌস ফয়সালের সঞ্চালনায় এতে মনোরোগ বিশেষজ্ঞ সিফাত-ই-সাইদ, মনোরোগ চিকিৎসক ফারজানা রহমান, মো. জিল্লুর রহমান খান, মেখলা সরকার ও যোবায়ের মিয়া পরামর্শ দেন।